সার্চ ইঞ্জিন ডাকডাকগোয়

সাম্প্রতিক বছরগুলোয় গুগল ও ইয়াহুর মতো সার্চ ইঞ্জিন জায়ান্টের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় নিরাপদ সার্চ ইঞ্জিন খুঁজছিলেন গ্রাহকরা। ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত গোপনীয়তার সর্বোচ্চ সুরক্ষার দাবি নিয়ে ক্রমে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ডাকডাকগো। ২০২১ সালে ডাকডাকগোয় দৈনিক অনুসন্ধানের (সার্চ) সংখ্যা ১০ কোটি ছাড়িয়েছে। চলতি বছরে সার্চ ইঞ্জিনটির কার্যক্রম সম্প্রসারণ হয়েছে প্রায় ৪৭ শতাংশ। খবর টেক টাইমস।

সপ্তাহান্তে ব্লিপিং কম্পিউটারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বছরওয়ারি চাঙ্গা প্রবৃদ্ধি দেখিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়াভিত্তিক সার্চ ইঞ্জিনটি। এ খাতে গুগলের একতরফা আধিপত্য থাকলেও বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ নিরাপদ এ সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার শুরু করেছে। ২০২০ সালের ডিসেম্বরে দৈনিক ৭ কোটি ৯০ লাখ অনুসন্ধানের রেকর্ড গড়েছিল ডাকডাকগো। গত ডিসেম্বরে মোট অনুসন্ধান হয়েছিল ২ হাজার ৩৬০ কোটি। চলতি বছরের শেষ মাসে ১০ কোটি দৈনিক অনুসন্ধানের রেকর্ড হয়েছে। চারদিন বাকি থাকা এ ডিসেম্বরে মোট অনুসন্ধান হয়েছে ৩ হাজার ৪৬০ কোটি। ২০২০-এর তুলনায় চলতি বছরে অনুসন্ধান বেড়েছে ৪৬ দশমিক ৪ শতাংশ।

তবে সার্চ ইঞ্জিন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে ডাকডাকগোর অনেক উন্নতির জায়গা রয়েছে বলে মনে করে ব্লিপিং কম্পিউটার। চলতি বছরে আকর্ষণীয় প্রবৃদ্ধি করলেও প্রতিদ্বন্দ্বী সার্চ ইঞ্জিনগুলোর চেয়ে বাজার শেয়ারে অনেক পিছিয়ে আছে ডাকডাকগো। সার্চ ইঞ্জিন জায়ান্ট গুগলের বাজার শেয়ার ৮৭ দশমিক ৩৩ শতাংশ। সেখানে ডাকডাকগোর বাজার শেয়ার মাত্র ২ দশমিক ৫৩ শতাংশ। তাদের নিকট প্রতিদ্বন্দ্বী ইয়াহু ও বিংয়ের বাজার শেয়ার ছিল যথাক্রমে ৩ দশমিক ৩ ও ৬ দশমিক ৪৩ শতাংশ। নিজেদের বাজার শেয়ার সম্প্রসারণের লক্ষ্যে ডেস্কটপ ওয়েব ব্রাউজার নিয়ে কাজ করছে ডাকডাকগো। গত সপ্তাহে কোম্পানির সিইও গ্যাব্রিয়েল উইনবার্গ জানান, ডেস্কটপ ওয়েব ব্রাউজারটি উন্নয়ন পর্যায়ে (ডেভেলপমেন্ট ফেজ) রয়েছে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোয় অনলাইন নিরাপত্তা ব্যবহারকারীদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রযুক্তি জায়ান্টগুলো গ্রাহকদের ডাটা ও তথ্য তৃতীয় পক্ষের কাছে হস্তান্তর করছে এমন বেশ কয়েকটি ঘটনা সামনে এসেছে। স্প্রেড প্রাইভেসির পৃথক এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গুগলে অনুসন্ধান করলে ব্যবহারকারীদের তথ্য সংরক্ষণ করছে সার্চ ইঞ্জিন জায়ান্টটি। ডাকডাকগোতে ডাটা সংরক্ষণ ও বেহাতের এমন ফিচার নেই। বিজ্ঞাপনের জন্য যেখানে শীর্ষ সার্চ ইঞ্জিনগুলো গ্রাহকের ডাটা সংগ্রহ ও তৃতীয় পক্ষের সঙ্গে শেয়ার করে, সেখানে গ্রাহকদের সম্পূর্ণ নিরাপত্তা দেয় ডাকডাকগো।

ই-মেইল ট্র্যাকিং থেকে ব্যবহারকারীদের নিরাপদ রাখতে সার্চ ইঞ্জিনটিতে রয়েছে ই-মেইল প্রটেকশন সেবা। অ্যান্ড্রয়েড ফোনে অ্যাপ ট্র্যাকিং থেকে সুরক্ষা দিচ্ছে তারা। এতে তৃতীয় পক্ষের আক্রমণ থেকে ব্যক্তিগত ডাটা সুরক্ষিত থাকবে। বিজ্ঞাপন থেকে আকাশচুম্বী আয় ধরে রাখতে অ্যাপ ট্রাকিং করে আসছে ফেসবুক ও গুগল ক্রোমের মতো প্রযুক্তি জায়ান্ট।

সম্প্রতি এক ব্লগ পোস্টে ডাকডাকগো জানায়, যেকোনো অনুসন্ধান, ব্রাউজিং, ই-মেইল ও বিভিন্ন সেবায় ব্যক্তিগত সুরক্ষা নিশ্চিত আমাদের অগ্রাধিকার। এখানে নেই কোনো জটিল সেটিংস, নেই বিভ্রান্তিকর সতর্কতা, নেই ব্যক্তিগত নিরাপত্তার বিভিন্ন মাত্রা। সব ব্যবহারকারীর জন্য ডিফল্ট আকারে থাকছে সর্বোচ্চ গ্রাহক নিরাপত্তা।

Advertisements