পাইল্‌স কেন হয় এবং হলে করণীয়
Advertisements

পাইলস কি?
পাইল্‌স বা হেমোরয়েড প্রচলিত বাংলায় অর্শ্ব বা গেজ রোগও বলা হয়ে থাকে। রোগটির নামকরণ নিয়ে নানা ধরনের জটিলতা রয়েছে। তবে নাম যাই হোক না কেন, পাইল্‌স হচ্ছে মলদ্বারের ভেতরের আবরনি, তার রক্ত নালী ও অন্যান্য মাংস পেশির সমন্বয়ে গঠিত একটি কুশন বা গদির ন্যায় নরম অংশ। এটি মলদ্বারের ভেতরেই থাকে। কিন্তু যখন রোগ হিসেবে প্রকাশ পায় তখন ঝুলে বাইরে বের হয়ে আসে বা আসতে পারে।

পাইলস কেন হয়?
বিভিন্ন কারণে পাইল্‌স হয় বা এর লক্ষণ প্রকাশ পেতে পারে। যেমন:
দীর্ঘ সময় টয়লেটে বসে থাকা এবং চাপ প্রয়োগ করে টয়লেট করা, বিশেষ করে দীর্ঘমেয়াদি কোষ্টকাঠিন্য ব্যক্তিদের এ রোগ বেশি হয়। যারা প্যান এ টয়লেট করেন, বংশানুক্রমিক কারণ, ঘন ঘন পতলা পায়খানা হলে বা হওয়া, রক্ত নালীর মধ্যে কপাটিকা (ভাল্ব) না থাকা, গর্ভকালীন অবস্থা সহ আরও কিছু কারণ।

লক্ষণ বা উপসর্গ সমূহ:

যাদের টয়লেট করার সময় তাজা রক্ত বা রক্ত যায়, মলত্যাগের সময় নরম আবরনি ঝুলে বাইরে চলে আসা, ব্যথা- সাধারণত বাইরে এসে আটকে গেলে অথবা ভেতরে রক্তক্ষরণ হলে, চুলকানি হওয়া বা দেখা দেওয়া, আম (মিউকাস) জাতীয় নিঃসরণ।

প্রাথমিকভাবে করণীয়:
এসব রোগ সম্পর্কে সচেতন হতে হবে। পাইল্‌স এর চিকিৎসা হাতুড়ে চিকিৎসার মাধ্যমে হলে মলদ্বারের স্থায়ী ক্ষতি হতে পারে, এমনকি মলদ্বার বন্ধও হয়ে যেতে পারে। তাই পাইল্‌স এর লক্ষণ প্রকাশ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এর চিকিৎসা নেওয়া উচিত।
শুরুতেই এর চিকিৎসা নিলে জটিলতা কম হয় এবং ভালো হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। এজন্য প্রথমেই একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক কর্তৃক রোগ নির্নয় করানো উচিত। সঠিক রোগ নির্ণয় সঠিক চিকিৎসার পূর্বশর্ত।

চিকিৎসা:

পাইল্‌স এর পর্যায়ের ওপর এর চিকিৎসা নির্ভর করে। ১ম পর্যায়ে সাধারণত ওষুধ অথবা থাদ্যাভাস পরিবর্তনের মাধ্যমেই ভালো খাকা যায়, ২য় পর্যায়ে চিকিৎসকরা রিং লাইগেশন, ইনজেকশন, সার্জারি করে থাকেন। এই রোগটির ৩য় ও ৪র্থ পর্যায়ে মূলত সার্জারি হয়ে থাকে।

কখন অপারেশন করতে হয়: পাইল্‌স (অর্শ) হলেই অস্ত্রোপচার করতে হবে এমনটি মনে করে অনেকে চিকিৎসকের কাছে যেতে ভয় পান। অনেক রোগী বলে থাকেন, অপারেশন ছাড়া ঠিক করা যাবে কিনা বা সার্জারির পরে সেটি আবার হবে কিনা। সাধারণত প্রথম স্টেজে পাইল্‌স যখন থাকে, তখন সাধারণত সার্জারির জন্য পরামর্শ দেয়া হয় না। তখন ওষুধ দিয়ে রোগীকে সুস্থ করে তোলা হয়। প্রাথমিক পর্যায়ে এসব রোগীর চিকিৎসার দু’টি ধাপ রয়েছে।

প্রথমত:
রোগীর জীবনযাপন পরিবর্তন করা ও কোষ্টকাঠিন্য প্রতিরোধ করা। এজন্য পর্যাপ্ত পানি পান করা, শাক-সবজি খাওয়া ও প্রয়োজনে ইসবগুলের ভুসি বা চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী খেতে হবে। এরপর যখন সেকেন্ড স্টেজে আসে, তখন সে ক্ষেত্রেও আমরা ওষুধপত্র ও কিছু করণীয় দেওয়া হয়। এসবে রোগীর অবস্থার উন্নতি না হলে তখন কাটাছেঁড়া ছাড়াও এই রোগের চিকিৎসা করা যায়। পাইল্‌স এর চিকিৎসায় আমরা একটা প্রসিডিউর করি, যেটাকে বলা হয় ব্যান্ডিং। একটি রাবার ব্যান্ডের মতো জিনিস, যেটা রক্তনালির টিউমারের মুখে পরিয়ে দেয়া হয়। তখন পাইল্‌স অটোমেটিক্যালি শুকিয়ে ঝরে যায়। আগের চেয়েও যদি বেড়ে যায়, থার্ড বা ফোর ডিগ্রির দিকে চলে আসে, তখন সার্জারি করা হয়। তবে এখন মলদ্বারের কাছে খুব বেশি কাটাছেঁড়ার প্রয়োজন হয় না। আগে কাটাছেঁড়া করা হতো, তখন খুব ব্যথা হতো, রস ঝরতো, বিভিন্ন ধরনের অসুবিধা হতো; এখন মেশিনের সাহায্যে অপারেশনের ফলে এই অসুবিধাগুলো হয় না। আজকাল কোনো ধরনের দৃশ্যমান কাটাছেঁড়া ছাড়াই মেশিনের মাধ্যমে পাইল্‌স সার্জারি সম্ভব। একে ‘লংগো’ অপারেশন বলা হয়। এর রেজাল্টও ভালো। আগে পাইল্‌স সার্জারির পর দেড় থেকে দুই মাস লাগতো ঘা শুকাতে, এখন এসবের কোনো ঝামেলাই নাই। অপারেশনের পর রোগী দ্রুত সেরে ওঠে, অস্ত্রোপচারের এক থেকে দু’দিনের মধ্যে রোগীরা বাসায় যেতে পারেন। কাজে যোগ দিতে পারেন।

লেখক: সহযোগী অধ্যাপক (কলোরেক্টাল সার্জারি বিভাগ)কলোরেক্টাল, লেপারোস্কপিক ও জেনারেল সার্জন
বঙ্গবন্ধুৃ শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা।

Advertisements