চার্লি চ্যাপলিন কেমন ছিলেন

মাথায় কালো রঙের ডার্বি হ্যাট, পরনে জরাজীর্ণ কোট-টাই, ঢিলেঢালা মলিন প্যান্ট, হাতে ছড়ি, পায়ে পুরনো এক জোড়া বুট ও ঠোঁটের উপরে গোঁফ—মানুষটাকে নিশ্চয়ই চেনা চেনা লাগছে। হ্যাঁ, তিনি আর কেউ নন, তিনি চার্লি চ্যাপলিন। যিনি বৃষ্টিতে কাঁদতে ভালোবাসতেন, যাতে কেউ তার চোখের পানি দেখতে না পায়। চ্যাপলিন বলেছিলেন, ‘আই অলওয়েজ লাইক ওয়াকিং ইন দ্য রেইন, সো নো ওয়ান ক্যান সি মি ক্রাইং।’

চ্যাপলিনের মতে যেদিন হাসা হলো না, সেদিনই বৃথা। তাই দর্শকদের জীবনভর হাসিয়েছেন চ্যাপলিন। তার অভিনয়ে হাসতে হাসতে কেঁদেছে দর্শক। হাসাতে হাসাতেই তিনি নিখুঁতভাবে তুলে ধরেছেন পুঁজিবাদী সমাজের চিত্র। কৌতুক-হাসির মধ্য দিয়ে বিদ্রোহ আর বিপ্লবী মানুষটিকে শুধু কমেডিয়ান বললে ভুল হবে। তিনি ছিলেন মহাশিল্পী।

সম্প্রতি এ অভিনেতাকে নিয়ে নির্মিত ‘দ্য রিয়েল চার্লি চ্যাপলিন’ শীর্ষক ডকুফিল্মের ট্রেলার প্রকাশিত হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রিমিয়ার টেলিভিশন নেটওয়ার্ক শোটাইমের ১ ঘণ্টা ৫৪ মিনিটের এ ডকুফিল্মের পরিচালক জেমস স্পিনি ও পিটার মিডলটন। তারা তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন বাস্তব জীবনে কেমন ছিলেন এ বিখ্যাত অভিনেতা।

সিনেমায় শোনা যাবে ধারণকৃত কিছু অডিও, যা আগে কখনো প্রকাশিত হয়নি। আরো ব্যবহার করা হয়েছে বিভিন্ন মুহূর্তের নাটকীয় পুনর্গঠন এবং তার ব্যক্তিগত অর্জন। অবিশ্বাস্যভাবে লন্ডনের বস্তি থেকে হলিউডের শীর্ষে পৌঁছা চার্লি চ্যাপলিনের উত্থানের গল্প বলা হয়েছে এ ডকুফিল্মে। চ্যাপলিনের ব্যক্তিগত আর্কাইভ থেকেও নানা উপাদান তুলে এনেছেন পরিচালকদ্বয়।

দ্য রিয়েল চার্লি চ্যাপলিনে দেখানো হয়েছে ভক্তদের হূদয়ে আজও চ্যাপলিন কীভাবে জায়গা করে আছেন। চার্লি চ্যাপলিন শুধু মানুষকে হাসাননি, তিনি পরিচিত ছিলেন যুদ্ধ এবং উগ্র জাতীয়তাবাদের বিরোধী হিসেবে। ফলে তিনি হয়েছিলেন অনেকের ক্রোধের শিকার। মহান এ শিল্পীকে সিটি লাইটস, দ্য গোল্ড রাশ, দ্য গ্রেট ডিক্টেটর, মডার্ন টাইমসসহ আরো অনেক সিনেমার জন্য চিরকাল মনে রাখবে ভক্তরা। অধিকাংশের মনে থাকবেন আইকনিক চরিত্র দ্য লিটল ট্রাম্পের স্রষ্টা হিসেবে।

সূত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

Advertisements