কালীগঞ্জে মাছের সাথে শত্রুতা

গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার মোক্তারপুর ইউনিয়নে দুর্বৃত্তরা দেড় বিঘার ২টি পুকুরে বিষ প্রয়োগ করে মাছ মেরে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় লক্ষাদিক টাকার মাছ মারা গেছে ।

সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে এ বিষয়ে অভিযোগ করেছেন ক্ষতিগ্রস্থ দুই পুকুর মালিক।

দুই পুকুর মালিক হলেন— শুক্কুর আলী (৯৫) ও আমিনুল ইসলাম পালোয়ান (৫৫)। তারা আপন দুই ভাই। তারা কালীগঞ্জ উপজেলার মোক্তারপুর ইউনিয়নের বড়গাঁও গ্রামের মৃত বদরুজ্জামান পালোয়ানের ছেলে।

ক্ষতিগ্রস্থরা জানান, শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত গভীর রাতে তাদের বাড়ির পাশের দুটি পুকুরে কে বা কারা কীটনাশক প্রয়োগ করে। সকালে পুকুরে মাছ ভাসতে দেখে প্রথমে মাছের রোগ হয়েছে ভেবে বিষয়টি আমলে নেননি তারা। পরে একে একে ভেসে ওঠে পুকুরে চাষ করা রুই, কাতল, মৃগেল সিলভার কার্প, তেলাপিয়া, শরপুঁটিসহ সকল প্রকার দেশি মাছ। তবে এ ব্যাপারে কাউকে দোষী সাব্যস্ত করে আইনের আশ্রয় নেননি তারা। তবে স্থানীয় জেলেদের খবর দিয়ে মাছগুলো এক সঙ্গে করে মাটির পুঁতে রাখেন তারা।

তারা বলেন, ‘আসলে বিষ প্রয়োগ করতে আমরা কাউকে দেখিনি। এখন যদি কাউকে সন্দেহ করে অভিযোগ করি তাহলে হয়তো কিছু মানুষ শুধু শুধু ক্ষতিগ্রস্থ হবে। তাই এই কাজের বিচার আল্লাহ করবে। মানুষের সঙ্গে মানুষের শত্রুতা থাকতে পারে ঠিক আছে। কিন্তু পুকুরের মাছের সঙ্গে এ কেমন শত্রুতা?’

স্থানীয়রা জানান, উপজেলার মোক্তারপুর ইউনিয়নের বড়গাঁও গ্রামের মৃত বদরুজ্জামান পালোয়ানের ছেলে পুকুর মালিক শুক্কুর আলী ও আমিনুল ইসলাম তাদের বাড়ির পাশের পশ্চিম ও উত্তরের দুটি পুকুরের প্রায় দেড় বিঘার নিজস্ব জমিতে ১ লক্ষাধিক টাকা ব্যয়ে বিভিন্ন প্রজাতির মাছের চাষ করে আসছেন। মাছগুলো কিছু দিন পরেই তিনি বিক্রি করতেন। শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত গভীর রাতে কে বা কারা পুকুরে কীটনাশক প্রয়োগ করে চলে যায়। পরে সকাল থেকে দিনব্যাপী সব মাছ মরে ভেসে ওঠে।

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এককেএম মিজানুল হক জানান, এ ব্যাপারে কোনো অভিযোগ পাইনি। তবে অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।