কাপাসিয়ায় জমি নিয়ে সংঘর্ষে গৃহবধূর মৃত‌্যু

গাজীপুর কাপাসিয়ায় বারিষাব ইউনিয়নের কিত্তোনিয়া গ্রামে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে দুপক্ষের সংঘর্ষে এক নারী নিহত হয়েছেন। এ সময় নিহতের ভাইসহ উভয় পক্ষের অন্তত চারজন আহত হয়েছেন। পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত দুই নারীসহ তিনজনকে আটক করেছে।

বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) সকালে এ ঘটনা ঘটে বলে বারিষাব ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার মো. সুলতান উদ্দিন জানান।

নিহত নারীর নাম জুলেখা বেগম (৫২)। তিনি কাপাসিয়া উপজেলার বারিষাব ইউনিয়নের কিত্তোনিয়া গ্রমের জালাল উদ্দিনের স্ত্রী।

সংঘর্ষে আহতরা হলেন তোতা মিয়া (৫৭), লাল মিয়া (৪৬), দুলাল মিয়া (৪২) ও দুলালের ছেলে আলম (২৩)।

পুলিশ, নিহতের স্বজন ও স্থানীয়রা জানায়, জেলার কাপাসিয়া উপজেলার বারিষাব ইউনিয়নের কিত্তোনিয়া গ্রামে এক খণ্ড জমি নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে জুলেখার সঙ্গে প্রতিবেশী লাল মিয়া ও দুলাল মিয়ার বিরোধ চলে আসছিল। আজ বৃহস্পতিবার সকালে লাল মিয়া ও দুলাল মিয়া লোকজন নিয়ে ওই জমিতে স্থাপনা নির্মাণ করতে যান। এ সময় জুলেখা ও তাঁর ভাই তোতা মিয়া তাদের বাধা দেন। এতে দুপক্ষের মধ্যে বাকবিতণ্ডা ও হাতাহাতি হয়। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। এ সময় প্রতিপক্ষের শাবলের আঘাতে জুলেখা মাথায় আঘাত পেয়ে গুরুতর আহত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। সংঘর্ষে আরও চারজন আহত হন।

স্বজনরা আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে জুলেখা বেগম মারা যান।

গাজীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফারজানা ইয়াসমিন জানান, খবর পেয়ে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। আহত তোতা মিয়াকে ওই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে আলমকে আটক করেছে পুলিশ। এছাড়া রিয়াসহ অপর দুই নারীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

নিহতের ভাই তোতা মিয়া জানান, তাদের ভোগদখলীয় জমি নিয়ে প্রতিপক্ষরা প্রায় ১৫ বছর আগে আদালতে রেকর্ড সংশোধনের মামলা করেছিলেন। বর্তমানে ওই মামলা চলমান রয়েছে। আজ তারা অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ওই জমি দখল করতে এসে হামলা চালিয়ে মারধর ও হত্যা করে।