কাপাসিয়ার এক তরুণীকে ফোনে ডেকে নিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

গাজীপুর শ্রীপুর উপজেলার রাজাবাড়ি ইউনিয়নে পোশাক কারখানার এক তরুণী শ্রমিক (১৯) সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। গত ১৩ নভেম্বর ফোন করে ডেকে এনে তুলে নিয়ে ওই তরুণীকে ধর্ষণ করেন দুই যুবক।

তরুণীর অভিযোগ, নির্যাতনকালে অভিযুক্ত ধর্ষকদের সহযোগিতা করেন আরো এক যুবক। এ ঘটনায় গত শুক্রবার (২০ নবেম্বর) রাতে নির্যাতনের শিকার তরুণী অজ্ঞাতপরিচয় যুবকসহ তিনজনকে আসামি করে শ্রীপুর থানায় মামলা করেছেন।

নির্যাতনের শিকার পোশাক কারখানার তরুণী শ্রমিকের বাড়ি কাপাসিয়া উপজেলায়। তিনি রাজাবাড়ি ইউনিয়নে ভাড়া বাসায় থেকে পাশের একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করেন।

অভিযুক্ত ধর্ষকরা হলেন- শ্রীপুর উপজেলার নালিয়াটেক গ্রামের সাদ্দাম হোসেন (২২), নারায়ণপুর গ্রামের মোঃ মাহামুদের ছেলে মোঃ শরিফ (২০) ও অজ্ঞাতপরিচয় এক যুবক। সাদ্দাম হোসেনের বাবার নাম জানাতে পারেনি পুলিশ। শনিবার (২১ নভেম্বর) সকালে অভিযান চালিয়ে পুলিশ মোঃ শরিফকে গ্রেপ্তার করেছে।

ওই তরুণী জানান, সাদ্দাম হোসেন তার সঙ্গে মোবাইল ফোনে প্রায়ই কথা বলতেন। গত ১৩ নভেম্বর বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ফোন করে তাকে রাজাবাড়ি বাজারের পাশে উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে যেতে বলেন। সেখানে পৌঁছামাত্র সাদ্দাম, শরিফ ও অজ্ঞাতপরিচয় এক যুবক সিএনজিচালিত একটি অটোরিকশাযোগে তুলে নিয়ে যায় তাকে। পরে নালিয়াটেক গ্রামে সাদ্দাম হোসেনের বাড়িতে নিয়ে সাদ্দামসহ অজ্ঞাতপরিচয় যুবক তার ওপর নির্যাতন চালান। নির্যাতনের পর তাঁকে ফের অটোরিকশায় তুলে দেন – অভিযুক্তরা।

শ্রীপুর থানার পরিদর্শক গোলাম সারোয়ার বলেন, অভিযুক্ত ধর্ষক শরিফকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অজ্ঞাতপরিচয় যুবকসহ সাদ্দামকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

Advertisements